আন্সবিডিতে সুস্বাগতম।এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং গোষ্ঠীর অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন।
আন্সবিডি এ সুস্বাগতম, যেখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং গোষ্ঠীর অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। মূলত এটি বাংলাভাষীদের জন্য উন্মুক্ত শিক্ষামূলক প্রশ্নোত্তর প্লাটফর্ম। বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত শিক্ষামূলক প্রশ্নোত্তর প্লাটফর্ম গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য।
  1. siam

    163 পয়েন্ট

    21 টি উত্তর

    48 টি প্রশ্ন

  2. Aolad hosen

    149 পয়েন্ট

    37 টি উত্তর

    38 টি প্রশ্ন

  3. Sarah!

    105 পয়েন্ট

    33 টি উত্তর

    5 টি প্রশ্ন

  4. Robiul Islam Raby

    82 পয়েন্ট

    28 টি উত্তর

    2 টি প্রশ্ন

  5. Nodi akter

    75 পয়েন্ট

    18 টি উত্তর

    14 টি প্রশ্ন

8 Online
0 User 8 Guest
63 জন দেখেছেন
"গল্পসমূহ" বিভাগে করেছেন
পূনঃতকমাযুক্ত করেছেন

1 টি উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
**রোমান্টিক প্রেম** --দ্বিতীয় এবং শেষ পর্ব** *কথাগুলোর মধ্যে হঠাৎ আমার চোখ পড়ল মালিহার পায়ের দিকে। শাড়িটার একপাশ নিচের দিকে নেমে আছে। আরেকপাশ উপরে উঠে আছে। আর শাড়ির কুচিটাও মাটির সাথে অনেক খানি লেগে আছে। . -বাহ্ তুমিতো খুব সুন্দর করে শাড়ি পড়তে পারো। -কেন কি হয়েছে? -একবার নিচের দিকে তাকিয়ে দেখো? . মালিহা নিচের দিকে তাকিয়ে দেখে- -সেকি!! এরকম আবার কখন হলো। আমিতো বাসা থেকে ঠিক করে পড়েই বের হয়েছি। -তাতো দেখতেই পাচ্ছি। আর আসার সময়,, পথের সবাইকে দেখিয়ে আসছো তুমি খুব সুন্দর শাড়ি পড়তে পারো,,,,হাহাহা। -তুমি হাসছো?? আমিতো বলেছি আমি শাড়ি পড়তে পারিনা। শুধু তোমার কথাতেই পড়ে এসেছি।(একটু কেদো কেদো মুখে) -আচ্ছা এবার এদিকে আসোতো। তোমার শাড়িটা ঠিক করে দেই। . যখনি মালিহা আমার দিকে আসতে লাগলো,,তখনি তার শাড়ির একপাশ জুতোর সাথে আটকে ঠাস করে ও মাটিতে পড়েগেল। এই যা গেছেরে!!!! বলে আমি দিলাম দৌড় ওর কাছে। মালিহার দুহাত টেনে ওকে উপরে তুল্লাম। চারদিকে তাকালাম,,যাক বাবা কেউ দেখেনি। তারপর পাসের একটা সিটে গিয়ে ওকে বসালাম। . মালিহা লজ্জায় নিচের দিকে তাকিয়ে আছে। কোনো কথা বলছেনা। আমি লক্ষ্য করে দেখলাম যে,,ওর ডান হাতে খুব লেগেছে। ওর এ অবস্থা দেখে আমারও খুব খারাপ লাগছে। মেয়েটি বড্ড সহজ-সরল। আমাকে ও পাগলের মতো ভালোবাসে। তাইতো আমি যা বলি ও তাই করে। -এই তোমারতো খুব লেগেছে। -তাতে তোমার কি? তোমারতো খুব হাসার কথা। তুমি হাসতে থাকো।(এভার পুরাই কেঁদে দিলো) -আমার টুনটুনি পাখিটার খুব লেগেছে।আর আমি বুঝি হাসবো?? -হ্যাঁ হাসো,,,যতো খুশি ততো. (মুখটা অন্যদিকে ফিরিয়ে) -রাগ করেছো বুঝি?? রাগটা কি আমার উপর নাকি শাড়িটার উপর?? -তোমার উপর। তুমিইতো শাড়ি পড়তে বলেছো। -আচ্ছা বাবা,,আর শাড়ি পড়তে হবেনা।বিয়ের পরে আমিই তোমাকে প্রতিদিন শাড়ি পড়িয়ে দিবো। এই বলে একটা টান দিয়ে মালিহাকে জড়িয়ে ধরলাম। -এই ছাড়ো বলছি,,সবাই দেখছে -কেউ দেখছেনা। সবাই সবার কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছে। ঐ ঝোপটার দিকে একবার তাকাও?? . মালিহা ঝোপটার দিকে তাকিয়ে- -ছি!! কি অসভ্য ওরা। এই বলে মালিহা তার মুখটা আমার বুকের মধ্যে লুকিয়ে নিলো। আমিও তাকে আমার বুকে মধ্যে আগলে ধরে রাখলাম। আর সারাজীবন এভাবেই আগলে ধরে রাখতে চাই..* লেখক: মাহবুব এলাহি
করেছেন

সম্পর্কিত প্রশ্নসমূহ

1 টি উত্তর
9 টি উত্তর
15 আগস্ট 2020 "মতামত" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Sharif45
1 টি উত্তর
01 এপ্রিল "গল্পসমূহ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Mohammad sayem
1 টি উত্তর
31 জুলাই 2020 "বাংলা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Rasel
1 টি উত্তর
23 এপ্রিল "বাংলা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অলক তালুকদার
1 টি উত্তর
...